krishnochura @bfa

COLOR PALETTE

কৃষ্ণচূড়া | Flame Tree

Spread the love

কৃষ্ণচূড়া লাল হয়েছে ফুলে ফুলে,তুমি আসবে বলে

বৈশাখের আকাশে গনগনে সূর্য। কাঠফাটা রোদ্দুরে তপ্ত বাতাস। প্রকৃতি যখন প্রখর রৌদ্রে পুড়ছে, কৃষ্ণচূড়া-ফুল তখন জানান দেয় তার সৌন্দর্যের বার্তা। গ্রীষ্মের এই নিষ্প্রাণ রুক্ষতা চাপিয়ে প্রকৃতিতে নিজেকে মেলে ধরে আপন মহিমায়। যেন লাল রঙে পসরা সাজিয়ে বসে আছে প্রকৃতি, যে কারো চোখে এনে দেয় শিল্পের দ্যোতনা।

কবিগুরু রবি ঠাকুরের ভাষায় “গন্ধে উদাস হওয়ার মতো উড়ে/তোমার উত্তরী কর্ণে তোমার কৃষ্ণ চূড়ার মঞ্জুরি আজ টিকে আছে নড়বড়ে অস্তিত্ব নিয়ে ’’ 

কৃষ্ণচূড়া গাছ ও ফুলের বৈশিষ্ট্য

ফুলের রং উজ্জ্বল লাল। পত্র ঝরা বৃক্ষ, শীতে গাছের সব পাতা ঝরে যায়। বাংলাদেশে বসন্ত কালে এ ফুল ফোটে। ফুলগুলো বড় চারটি পাপড়ি যুক্ত। পাপড়িগুলো প্রায় ৮ সেন্টিমিটারের মত লম্বা হতে পারে। কৃষ্ণচুড়া জটিল পত্র বিশিষ্ট এবং উজ্জ্বল সবুজ। পাতা ২-পক্ষল, ৬০ সে মি পর্যন্ত লম্বা, পত্রিকা ২০-৪০ জোড়া, ক্ষুদে,, ১ সে মি লম্বা। ফুল ৭-১০ সে মি চওড়া, ৫ পাপড়ির একটি বড় ও তাতে হলুদ বা সাদা দাগ। ফল ৪০-৬০ সে মি লম্বা, শক্ত ও পাকলে গাঢ় ধুসর বা প্রায় কালো। বীজে চাষ।


কৃষ্ণচূড়া ফুলের  রঙ বিন্যাস

কৃষ্ণচূড়া

ইংরেজি নাম: Flame Tree | বৈজ্ঞানিক নাম: Delonix Regia

কৃষ্ণচূড়ার জন্মানোর জন্য উষ্ণ বা প্রায়-উষ্ণ আবহাওয়ার দরকার। এই বৃক্ষ শুষ্ক ও লবণাক্ত অবস্থা সহ্য করতে পারে। ক্যারাবিয়ান অঞ্চল, আফ্রিকা, হংকং, তাইওয়ান, দক্ষিণ চীন, বাংলাদেশ, ভারত সহ বিশ্বের অনেক দেশে এটি জন্মে থাকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণচূড়া শুধু মাত্র দক্ষিণ ফ্লোরিডা, দক্ষিণ পশ্চিম ফ্লোরিডা, টেক্সাসের রিও গ্রান্ড উপত্যকায় পাওয়া যায়।

কৃষ্ণচূড়া গাছের লাল, কমলা, হলুদ ফুল এবং উজ্জল সবুজ পাতা একে অন্যরকম দৃষ্টিনন্দন করে তোলে। কৃষ্ণচূড়া মাদাগাস্কারের শুষ্ক পত্রঝরা বৃক্ষের জঙ্গলে পাওয়া যায়। যদিও জঙ্গলে এটি বিলুপ্ত প্রায়, বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে এটি জন্মানো সম্ভব হয়েছে। সৌন্দর্য বর্ধক গুণ ছাড়াও, এই গাছ উষ্ণ আবহাওয়ায় ছায়া দিতে বিশেষভাবে উপযুক্ত। শুষ্ক অঞ্চলে গ্রীষ্মকালে কৃষ্ণচূড়া -র পাতা ঝরে গেলেও, নাতিষীতোষ্ণ অঞ্চলে এটি চিরসবুজ।

সাধারণত এপ্রিল-জুন সময়কালে কৃষ্ণচূড়া ফুল ফোটে। তবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কৃষ্ণচূড়ার ফুল ফোটার সময় বিভিন্ন।

দক্ষিণ ফ্লোরিডা – জুন

ক্যারাবিয়ান – মে থেকে সেপ্টেম্বর

ভারত – এপ্রিল থেকে জুন

অস্ট্রেলিয়া – ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি

সংযুক্ত আরব আমিরাত – মে- জুলাই


কবিতায়

কৃষ্ণচূড়ার প্রতি রাধার উক্তি

——- নির্মলেন্দু গুণ

সবাই যখন ঝরে গেছে, ঝরে যাচ্ছে,

তখন তোমার ফোটার সময় হলো?

কৃষ্ণচূড়া, –হে কৃষ্ণের প্রিয় লাল ফুল,

শ্রীরাধার কাছে কী চাও তুমি বলো।

কৃষ্ণচূড়া, হে হেমন্তের অকাল কৃষ্ণচূড়া,

তুমি তো জানোই, – পরিণীতা হয়েও

সুদামার অভিশাপে রাধা যে অনূঢ়া।

তোমার প্রণয়কলা প্রজাপতি জানে।

কিছুটা আমিও বুঝি, কেন যে অকালে

হঠাৎ ফুটেছো তুমি আমার বাগানে।

আমি তোমার প্রেমের খেলায়

পুড়তে রাজী দহনবেলায়।

আমাদের প্রেম কবে শেষ হবে বলো?

পতিদাহ; শাস্ত্রসম্মত নহে জানি,

আমারই না হয় সতীদাহ হলো।


পোশাক অলংকরনে

পোশাক অলংকর : আড়ং | বৈশাখ আয়োজন | ২০২০


স্থির চিত্র

বাংলাদেশের অন্যান্য পরিচিত ফুল সম্পকের্ জানতে এখঅনে ক্লিক করুন

সোনালু বা সোনাইল| GOLDEN SHOWER TREE


Photo credit : fayzehassan & Bipul Hossain
copyright 2020
please don’t use those image on websites, blogs or other media without my explicit permission.
Graphic : FXYZ
powered by bangladesh fashion archive | BFA

তথ্যসুত্র :
https://bn.wikipedia.org/wiki/%E0%A6%95%E0%A7%83%E0%A6%B7%E0%A7%8D%E0%A6%A3%E0%A6%9A%E0%A7%82%E0%A6%A1%E0%A6%BC%E0%A6%BE
www.priyoshahrasti.com

#কৃষ্ণচূড়া #Flame #Tree #লাল  #ফুল #তুমি #bangladesh #BFA


Spread the love

Leave a Reply

%d bloggers like this: