Bangladesh is a land of hospitality all district mymenshing x fxyz x bfa

সমৃদ্ধময় বাংলাদেশের ৬৪ জেলা | ময়মনসিংহ বিভাগ

মৈমনসিংহ গীতিকা একটি সংকলনগ্রন্থ যাতে ময়মনসিংহ অঞ্চলে প্রচলিত দশটি পালাগান লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। এই গানগুলো প্রাচীন কাল থেকে মানুষের মুখে মুখে প্রচারিত হয়ে আসছে।

বাংলাদেশ ইতিহাস ঐতিহ্যর দেশ। এদিক থেকে বেশ সমৃদ্ধশালী। দেশের বিভিন্ন জেলার নিজস্ব সংস্কৃতি, রয়েছে বিখ্যাত কিছু পন্য যা দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশে পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। রয়েছে নিজস্ব কিছু খাবার, রয়েছে ঐতিহাসিক স্থান সমূহ যা সুবিশাল ভান্ডারে সমৃদ্ধ আমাদের বাংলাদেশ। আমাদের ৮টি বিভাগের মধ্যে মোট ৬৪টি জেলা রয়েছে এবং প্রত্যেকটি জেলা কোন না কোন কারণে বিখ্যাত। “ আমার জেলার ব্রান্ডিং “ এই অধ্যায় থাকবে ময়মনসিংহ বিভাগের জেলাগুলো কী কারনে বিখ্যাত।

আমাদের জাতীয় এবং আর্ন্তজাতিক ভাবে স্বীকৃত এমন কিছু কিছু ঐতিহ্যবাহী স্থান আছে যেখানে প্রতিবছর লাখ লাখ পর্যটকের আনাগোনা যেনো মুখর থাকে, সেই ভাবে ব্রান্ডিং করতে হবে। কথা হচ্ছে নিদৃষ্ট কিছু স্থান নয়, আমাদের এগিয়ে আসতে হবে প্রতিটি পর্যায়ে- আমাদের ঐতিহ্যবাহী খাবার, ঐতিহ্যবাহী স্থান, আমাদের সংস্কৃতি এবং আমাদের আলোকিত পূর্ব পুরুষ, যাদের আত্নত্যাগে আমরা আলোকিত।

বিশ্বায়নের এই যুগে দেশের খ্যাতি ও সুনামকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরার জন্য এখন জোরেসোরে দেশকে ব্রান্ডিং করতে হবে নিজ নিজ উদ্যগে। এই ব্রান্ডিংয়ের মানে হচ্ছে দেশের সমৃদ্ধময় দিকগুলো বিশ্বের কাছে তুলে ধরা। ব্রান্ডিংয়ের সুফল হচ্ছে, দেশের ইতিবাচক ব্র্যান্ডিং খাড়া করতে পারলে সঙ্গে সঙ্গে দেশের জনশক্তি, পর্যটন, দেশে তৈরি পণ্য, বিনিয়োগ ও অন্যান্য সেবাও মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করে এবং গ্রহণযোগ্যতা পাবে। এই ব্রান্ডিং ইমেজ দেখেই মানুষ ঠিক করে কোন শহরে বেড়াতে যাবে। বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই ব্রান্ডিংকে গুরুত্ব দিচ্ছে । যেমন মালয়েশিয়া “ট্রুলি এশিয়া | Truly Asia ”, ভারত ‘ইনক্রেডিবল ইন্ডিয়া | Incredible India’, চীন সারা বিশ্বের ‘কারখানা’ এবং শ্রীলঙ্কা ‘রিফ্রেশিংলি শ্রীলঙ্কা | Refreshing SriLanka ’ হিসেবে পরিচিত। এছাড়া থাইল্যান্ড নিজেকে তুলে ধরছে ‘অ্যামেজিং থাইল্যান্ড | amazing thailand ’ নামে। আর আমাদের !

বাংলাদেশ এ ল্যান্ড অফ হসপিটালিটি। Bangladesh a Land of Hospitality

বাংলাদেশের ৬৪ জেলার সেরা খাবার, পন্য বা ঐতিহাসিকস্থান সমুহের  লিস্ট দেয়া হলো। পুরো লেখা আট পর্বে ভাগ করা হলো। এবারে ময়মনসিংহ বিভাগ

ময়মনসিংহ বিভাগ ৪ টি জেলা নিয়ে গঠিত। জেলা গুলো হলো –

১.জামালপুর

২.নেত্রকোনা

৩.ময়মনসিংহ

৪.শেরপুর

ময়মনসিংহ বিভাগ

Land of GEETIKA, MOHUA, MOLUYA

ময়মনসিংহ

MYMENSINGH

ময়মনসিংহ জেলার নাম আসলেই ব্রান্ডিং এর জন্য মৈমনসিংহ গীতকিা নাম চলে আসে। আমাদের নিজস্ব সম্পদ। এই গীতিকাটি বিশ্বের ২৩টি ভাষায় মুদ্রিত হয়।

মৈমনসিংহ গীতিকা একটি সংকলনগ্রন্থ যাতে ময়মনসিংহ অঞ্চলে প্রচলিত দশটি পালাগান লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। এই গানগুলো প্রাচীন কাল থেকে মানুষের মুখে মুখে প্রচারিত হয়ে আসছে। তবে ১৯২৩ -৩২ সালে ডক্টর দীনেশচন্দ্র সেন এই গানগুলো অন্যান্যদের সহায়তায় সংগ্রহ করেন এবং স্বীয় সম্পাদনায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় হতে প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়
শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা
ময়মনসিংহ জিলা স্কুল
আনন্দমোহন কলেজ
বোটানিক্যাল গার্ডেন
গসপেল চার্চ
মুক্তাগাছার জমিদারবাড়ী
আলেকজান্ডার ক্যাসল
শশী লজ
ময়মনসিংহ জাদুঘর
বৈলর জমিদার বাড়ি, বৈলর ইউনিয়ন
বীরঙ্গনা সখিনার সমাধি
তাজপুরের কেল্লা
আর্কিড বাগান
কুমির খামার
চকবাজার জামে মসজিদ
স্বাধীনতা স্তম্ভ

চিএশিল্পী আবদুস শাকুর শাহর চিত্রকলার অনুপ্রেরনায় মৈমনসিংহ গীতিকা নিয়ে ফ্যাশন হাউজ বিবিআনা ২০১৩ সালে বৈশাখ কালেকশন হিসেবে নিয়ে আসেন “মলুয়া” কালেকশন – ২০১৩

পড়তে পারেনঃ “যেভাবে সংগ্রহ করা হলো ‘মৈমনসিংহ গীতিকা’ “ প্রথম আলো সংবাদ। লিখেছেন তারিক মনজুর

জামালপুর

JAMALPUR

জামালপুর জেলার ব্রান্ডিং করার জন্য প্রথমেই আসে নকশিকাঁথা। যা বাংলাদেশের লোকশিল্পের একটা অংশ। এই শিল্প সমাজের মৌলিক সংস্কৃতিকে তুলে ধরে। কশি কাঁথার নকশা শুধু কাঁথার জমিনে সুঁইয়ের ফোঁড়ে ফুটিয়ে তোলা নকশাই নয়, একেকটি নকশী কাঁথার জমিনে লুকিয়ে থাকে গল্প, কখনো ভালোবাসার, কখনো দুঃখের। বাংলার পথে প্রান্তরে হারিয়ে যাওয়া গল্পকে বুকে নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে একেকটি নকশী কাঁথা।

এছাড়াও জামালপুর জেলার ব্রান্ডিং করা যায় বুড়ির দোকানের রসমালাই, ছানার পোলাও এবং ছানার পায়েসের জন্য ।

Nakshi kantha bangladesh নকশি কাঁথা: বাংলাদেশ

নকশি কাঁথা

বাংলাদেশের লোকশিল্পের একটা অংশ

বিস্তারিত জানতে..


আপনার একটি শেয়ারে জানবে বিশ্ব, আমাদের দেশ কতটা সমৃদ্ধ


শেরপুর

SHERPUR

শেরপুর জেলার ব্র্যান্ডিং পণ্য তুলশীমালা ধান চাল। ‘পর্যটনের আনন্দে, তুলসীমালার সুগন্ধে’ স্লোগান সামনে রেখে শেরপুর জেলা প্রশাসন এটিকে জেলার ব্র্যান্ডিং পণ্য হিসেবে ঘোষণা করেছে। শেরপুর জেলার অন্যতম ঐতিহ্য তুলসীমালা সুগন্ধি চাল। তুলসীমালা চাল চিকন ও সুগন্ধি। যেটি শেরপুর জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে চাষ করা হয়। উচ্চ গুণসম্পন্ন তুলসীমালা চাল অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও খনিজসমৃদ্ধ। ঈদ, পূজা–পার্বণ, বিয়ে, বউভাতসহ বিভিন্ন উৎসব অনুষ্ঠানে পোলাও, বিরিয়ানি ও মিষ্টান্ন তৈরিতে ব্যাবহার করা হয়। 

শেরপুরের তুলশীমালা ধান ২০২৩ সালের ১২ জুন দেশের ১৪শ ভৌগোলিক নির্দেশকের (জিআই) পণ্যের স্বীকৃতি লাভ করে

এছাড়া শেরপুরের মুক্তাগাছার মন্ডা এবং ঐতিহ্যবাহী ছানার পায়েসের সুনাম এখন পুরো বাংলাদেশব্যাপি। এই ছানার পায়েস তৈরি করা হয় খাঁটি গরুর দুধের ক্ষীর থেকে। ছানার পায়েসের পাশাপাশি ছানার চপও শেরপুরে বেশ বিখ্যাত।

নেত্রকোনা

NETROKONA

নেত্রকোনা জেলাটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ঐতিহাসিক স্থাপনা, ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের জন্য বিখ্যাত। নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার বিজয়পুর বাংলাদেশের একটি আকর্ষণীয় পর্যটন স্থান। এটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য যেমন বিখ্যাত তেমনি  সাদামাটির পাহাড় বা চিনামাটির পাহাড়ের জন্যও বেশ বিখ্যাত।  চিনামাটি মূলত সিরামিক শিল্পের কাঁচামাল। খনিজ সম্পদ ব্যুরোর ১৯৫৭ সালের তথ্যানুযায়ী, এ এলাকায় চিনামাটির মজুদ প্রায় ২৪ লাখ ৪০ হাজার মেট্রিক টন।

বিজয়পুরের সাদামাটি/চিনামাটি বাংলাদেশের একটি ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (জিআই)।

আর বর্তমানে জেলার অন্যতম পরিচিতি মিষ্টির কারণে। ঐতিহ্যবাহী ও বিখ্যাত এ মিষ্টি হচ্ছে ‘বালিশ মিষ্টি’। বালিশ মিষ্টি এ কারনে নেএকোণা জেলা বাংলাদেশ ও পৃথিবীর কিছু দেশে বিখ্যাত। গয়ানাথ ঘোষ নামের এক কারিগর আজ থেকে প্রায় ১০০ বছর আগে এ মিষ্টি তৈরি করে বিখ্যাত হয়েছিলেন। এ জন্য অনেকেই একে গয়ানাথের মিষ্টি বা গয়ানাথের চমচমও বলে থাকেন।

১. নির্মলেন্দু গুণ (কবি)
২. হুমায়ুন আহমেদ (ঔপন্যাসিক)
৩. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল (ঔপন্যাসিক)
৪. বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদ (সাবেক প্রেসিডেন্ট ও বিচারপতি)
৫. মনসুর বয়াতি
৬. কর্নেল তাহের
৭. বারি সিদ্দিকি
৮. বেগম রোকেয়া
৯. আয়েশা খানম
১০. কুদ্দুস বয়াতি
১১. শ্যামল চৌধুরী

Netrokona is a district of the Mymensingh Division

আয় তব সোমেশ্বরী

আরও পড়ুন

ফজলে রাব্বির ভ্রমন ডায়েরি


আপনার একটি শেয়ারে জানবে বিশ্ব, আমাদের দেশ কতটা সমৃদ্ধ


তথ্যসূত্র

বাংলাপিডিয়া

somewhereinblog

প্রথম আলো


fashion content writer

About Post Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

আপনার একটি শেয়ার আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা

X (Twitter)
Post on X
Pinterest
fb-share-icon
Instagram
FbMessenger
Open chat
1
Scan the code
Hello
How can i help you?
Skip to content