geographical indication products in Bangladesh

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ – সমৃদ্ধময় বাংলাদেশ

কথা হচ্ছে নিদৃষ্ট কিছু স্থান নয়, আমাদের এগিয়ে আসতে হবে প্রতিটি পর্যায়ে- আমাদের ঐতিহ্যবাহী খাবার, ঐতিহ্যবাহী স্থান, আমাদের সংস্কৃতি এবং আমাদের আলোকিত পূর্ব পুরুষ, যাদের আত্নত্যাগে আমরা আলোকিত।

বাংলাদেশ ইতিহাস ঐতিহ্যর দেশ। এদিক থেকে বেশ সমৃদ্ধশালী। দেশের বিভিন্ন জেলায় রয়েছে নিজস্ব সংস্কৃতি, রয়েছে বিখ্যাত সব পন্য যা দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশে পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। রয়েছে নিজস্ব কিছু খাবার, রয়েছে ঐতিহাসিক স্থান সমূহ যা সুবিশাল ভান্ডারে সমৃদ্ধ আমাদের বাংলাদেশ। আর এসব কোন পণ্য জি-আই স্বীকৃতি পেলে পণ্যগুলো বিশ্বব্যাপী ব্র্যান্ডিং করা সহজ হয়। এই পণ্যগুলোর আলাদা কদর থাকে। কথা হচ্ছে নিদৃষ্ট কিছু স্থান নয়, আমাদের এগিয়ে আসতে হবে প্রতিটি পর্যায়ে- আমাদের ঐতিহ্যবাহী খাবার, ঐতিহ্যবাহী স্থান, আমাদের সংস্কৃতি এবং আমাদের আলোকিত পূর্ব পুরুষ, যাদের আত্নত্যাগে আমরা আলোকিত। এখানে বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ নিয়ে আলোচনা করা হলো।

বিশ্বায়নের এই যুগে দেশের খ্যাতি ও সুনামকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরার জন্য এখন জোরেসোরে দেশকে ব্রান্ডিং করতে হবে নিজ নিজ উদ্যগে। এই ব্রান্ডিংয়ের মানে হচ্ছে দেশের সমৃদ্ধময় দিকগুলো বিশ্বের কাছে তুলে ধরা। ব্রান্ডিংয়ের সুফল হচ্ছে, দেশের ইতিবাচক ব্র্যান্ডিং খাড়া করতে পারলে সঙ্গে সঙ্গে দেশের জনশক্তি, পর্যটন, দেশে তৈরি পণ্য, বিনিয়োগ ও অন্যান্য সেবাও মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করে এবং গ্রহণযোগ্যতা পাবে। এই ব্রান্ডিং ইমেজ দেখেই মানুষ ঠিক করে কোন শহরে বেড়াতে যাবে। কোন পন্য কোন দেশের নিজস্বতা বহন করে। আর তা অফিসিয়াল ট্যাগ হলো জিআই স্বীকৃতি বা জিআই সনদ।

বাংলাদেশে প্রথম বারের মতো জি-আই পণ্য হিসাবে ২০১৬ সালে স্বীকৃতি পেয়েছিল জামদানি। এরপর ২০১৭ সালে ইলিশ, ২০১৯ সালে খিরসাপাতি আম, ২০২০ সালে ঢাকাই মসলিন সহ দেশের ২১ পণ্য এখন পর্যন্ত জিআই স্বীকৃতি পেয়েছে। প্রতি বছর আবেদনের পেক্ষিতে যাচাই বাছাই করে জিআই স্বীকৃতি দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশের টাঙ্গাইল শাড়ি ভারতের জি আই পণ্য হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর এ নিয়ে নতুন করে আলোচনা শুরু হয়েছে।

কোন পন্য কে আবেদন করলেই কি জিআই স্বীকৃতি দেয়া হয়? কেনই বা জিআই স্বীকৃতি নিতে হবে। তাহলে জানতে হবে জিআই পন্য কি?

জিআই পন্য কি?

What is the GI product in Bangladesh?

কোনো একটি দেশের মাটি, পানি, আবহাওয়া এবং ওই জনগোষ্ঠীর সংস্কৃতি যদি কোনো একটি পণ্য উৎপাদনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তাহলে সেটিকে ওই দেশের ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (জিআই) হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। ওই একই পণ্য অন্য কোনো এলাকায় উৎপাদন হলেও পণ্যের গুণমান, স্বাদ-গন্ধর নিজস্বতা হারিয়ে ফেলে।

কেবল খাদ্যপণ্যই নয়, কৃষি পণ্য, হস্তশিল্প বা শিল্পজাত অনেক পণ্যও রয়েছে, যেগুলো সুনির্দিষ্টভাবে কোনো এলাকার একান্ত নিজস্ব। এমনকি ওই এলাকার ভৌগলিক অবস্থান এবং জলবায়ুর সঙ্গেও এসব পণ্য সম্পর্কিত। এসব পণ্যকে ওই এলাকার পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার ব্যবস্থাই হলো ভৌগলিক নির্দেশক বা জিআই (জিওগ্রাফিক্যাল ইন্ডিকেশন)।

এবং ভৌগোলিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত এসব পন্য-সামগ্ৰী নিৰ্দিষ্ট ওই অঞ্চলটিতে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করার অধিকার এবং আইনি সুরক্ষা প্ৰদান করে।

সাধারণত জিআইতে উৎপত্তিস্থলের নাম (শহর, অঞ্চল বা দেশ) অন্তর্ভুক্ত থাকে। জিআই (GI) এর পূর্ণরুপ হলো (Geographical indication) ভৌগলিক নির্দেশক। WIPO (world intellectual property organization) হলো  জিআই পণ্যের স্বীকৃতি দানকারী প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ

Total number of geographical indication products in Bangladesh 

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ জামদানি GI product of bangaldesh web

জামদানি শাড়ি

JAMDANI SAREE | GI PRODUCT

প্রাচীনকালের মসলিন কাপড়ের উত্তরাধিকারী হিসেবে জামদানি শাড়ি। জামদানি, বাংলাদেশের নিজস্ব ঐতিহ্য। ঐতিহ্যবাহী নকশা ও বুননের কারণে ২০১৬ সালে জামদানিকে বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ইউনেস্কো।

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ ইলিশ GI product of bangaldesh w

বাংলাদেশ ইলিশ

Padma Ilisha | GI PRODUCT

ইলিশ বাংলাদেশের জাতীয় মাছ। ২০১৭ সালে বাংলাদেশের ইলিশ মাছ ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পায়। বিশ্বে ইলিশ উৎপাদনের ৭৫ ভাগই বাংলাদেশে

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম GI product of bangaldesh w

চাঁপাই নবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম

Khirsapat (Himsagar) Mango | GI PRODUCT

চাঁপাইনবাবগঞ্জের “খিরসাপাত / হিমসাগর” আম বাংলাদেশের তৃতীয় ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য। জিআই স্বীকৃতির মাধ্যমে  আমটি বাংলাদেশের নিজস্ব পণ্য হিসেবে স্বীকৃত।  শুরুটা প্রায় ২০০ বছর আগে। ময়মনসিংহের মহারাজা সুতাংশু কুমার আচার্য্য বাহাদুর চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাটে গড়ে তোলেন একটি আমবাগান। সেই বাগানেই অন্যান্য উৎকৃষ্ট জাতের আমের সঙ্গে চাষ হতো খিরসাপাত আম। বর্তমানে বাংলাদেশের উৎপাদিত আমের ৩০ শতাংশই খিরসাপাত আম।

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ বিজয়পুরের সাদা মাটি। GI product of bangaldesh w

বিজয়পুরের সাদামাটি

China Matir Pahar | GI PRODUCT

নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার ‘বিজয়পুরের সাদামাটি’ ভৌগলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে স্বীকৃত।
বিজয়পুরের সাদামাটি অত্যন্ত মূল্যবান ও দুষ্প্রাপ্য একটি খনিজ সম্পদ। সাধারণত সিরামিকের তৈজসপত্র, টাইলস্, স্যানিটারি ওয়্যার ও গ্লাস তৈরির ক্ষেত্রে এ মাটি ব্যবহৃত হয়। উৎকৃষ্ট মানের এ মাটির সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এটি প্রাকৃতিকভাবেই কেওলিন বা অ্যালুমিনিয়াম সমৃদ্ধ। অনেকে এটিকে চিনামাটিও (চায়না ক্লে) বলে থাকেন। 

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ দিনাজপুর কাটারীভোগ GI product of bangaldesh w

দিনাজপুরের কাটারীভোগ ধান

Dinajpur Katarivog | GI PRODUCT

দিনাজপুরের নিজস্ব ঐতিহ্য কাটারিভোগ ধান । এ ধান থেকে উৎপন্ন চাল যেমন সুগন্ধি যুক্ত তেমনি খেতেও সুস্বাদু। কাটারিভোগ দিনাজপুরের আদি ও অকৃত্রিম ধান। ধারনা করা হয়, একশ বছর আগে থেকেই দিনাজপুর জেলায় সুগন্ধি কাটারিভোগের চাষাবাদ হয়ে আসছে।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-কালিজিরা-GI-product-of-bangaldesh-w

কালিজিরা চাল

Kalijira Rice

কালিজিরা ধান বাংলাদেশে উৎপাদিত এক ধরনের উৎকৃষ্ট মানের ধান। কালো রংয়ের এই ধানের চাল বেশ সুস্বাদু। যা থেকে উৎপন্ন চালকে ছোট বাসমতী চালও বলা হয়। এটি রান্না করার পদ্ধতিও প্রায় বাসমতি চালের মতই। এই চালের ভাত আঠালো নয়। কালিজিরা চাল বাংলাদেশের একটি ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (জিআই)

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-রংপুরের-শতরঞ্জি-GI-product-of-bangaldesh-w

রংপুরের শতরঞ্জি

Kalijira Rice

শতরঞ্জি বাংলাদেশের রংপুর অঞ্চলের একটি ঐতিহ্যবাহী কারুপণ্য। প্রায় ৭০০ বছরের প্রাচীন ইতিহাস রয়েছে এই কারুপণ্যের। শতরঞ্জি বা ডুরি মূলত একপ্রকার কার্পেট। যা এখন পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন বুনন পদ্ধতি হিসেবে বিদ্যমান। শতরঞ্জি  বয়ন কৌশলের দিক দিয়ে আধুনিক ট্যাপেস্ট্রির অনুরূপ একটি শিল্প। রংপুরের ঘাঘট নদীর পার্শ্ববর্তী এলাকার জলবায়ু এবং ঘাঘট নদীর পানি শতরঞ্জি বুননের উপযোগী। যেমন জামদানির জন্য উপযোগী শীতলক্ষ্যা নদীর পানি।

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ রাজশাহী সিল্ক GI product of bangaldesh w

রাজশাহী সিল্ক

Rajshahi Silk

দেশের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে রাজশাহীর রেশম শিল্প। রাজশাহী জেলা প্রাচীনকাল থেকেই রেশম ও রেশমজাত পণ্য উৎপাদন এবং রপ্তানিতে ভারতবর্ষের যেকোনো অঞ্চলের তুলনায় শীর্ষ স্থানে অবস্থান করে এসেছে।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-ঢাকাই-মসলিন-GI-product-of-bangaldesh-w

ঢাকাই মসলিন

Dhakai Muslin

প্রাচীন বাংলার সমৃদ্ধ ইতিহাস আর ঐতিহ্যে যে নামটি তার আভিজাত্য আর নিজস্ব মহিমা নিয়ে জ্বলজ্বল করছে, তা হলো মসলিন, ঢাকাই মসলিন। একসময়ে শুধু বাংলা বা মুঘল রাজদরবারই নয়, বরং সমগ্র পৃথিবীজুড়েই অতি সূক্ষ্ম, মিহি, মোলায়েম আর উজ্জ্বল এই বস্ত্র ছিলো চাহিদার শীর্ষে। আমাদের হাজার বছরের ঐতিহ্যের অন্যতম প্রতীক এই মসলিন এতটাই সূক্ষ্ম ছিলো যে কথিত আছে একটি আংটির ভেতর দিয়েই গলানো যেত গজের পর গজ কাপড়। সূক্ষ্মতা সম্পর্কে অনেকে বলে থাকেন, ৫০ মিটার মসলিন কাপড় নাকি একটা দেশলাইয়ের বাক্সে অনায়াসেই এঁটে যেতো!

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-বাগদা-চিংড়ি-GI-product-of-bangaldesh-w

বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি

Bagda Chingri

বাংলাদেশে উৎপাদিত বাগদা চিংড়ি ২০১৯ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি শিরোনামে ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসাবে স্বীকৃত লাভ করে। পৃথিবীতে ৭ ধরনের পরিবারের ৫৪০ প্রজাতির বাগদা চিংড়ি রয়েছে। এ ধরনের চিংড়ি সর্বোচ্চ ৩৩০ মিলিমিটার বা ১৩ ইঞ্চি এবং ওজনে ৪৫০ গ্রাম বা ১ পাউন্ড হয়ে থাকে। 

content writer
বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-রাজশাহী-চাপাইনবাবগঞ্জের-ফজলি-আম-GI-product-of-bangaldesh-part-2

রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফজলি আম

Fazli Mango

ফজলি আমের একক স্বত্ব রাজশাহী কিংবা চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নয়। ‘রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফজলি আম’ হিসেবে ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) এই আম।
আমের অন্যান্য প্রজাতির থেকে দেরিতে ফলে এই জাতটি। সাধারণত চাটনি ও আচার তৈরিতে ব্যবহৃত হয় ফজলি আম।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-বাংলাদেশের-শীতল-পাটি-GI-product-of-bangaldesh-part-2

শীতল পাটি

SHITAL PATI

শীতল পাটি একই সঙ্গে  বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী কারুশিল্প ও লোকশিল্প। এটি সিলেটের ঐতিহ্যবাহী একটি শিল্প। মুরতা নামে একধরনের ঝোপজাতীয় গাছের বেত দিয়ে তৈরি হয়।
জাতিসংঘের অঙ্গ সংস্থা ইউনেসকো ৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ সালের সম্মেলনে সিলেটের শীতলপাটিকে ঘোষণা দেয় বিশ্বের ‘নির্বস্তুক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য’ বা ‘Intangible Cultural Heritage’ হিসেবে।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-বগুড়ার-দই-GI-product-of-bangaldesh-part-2

বগুড়ার দই

Curd of Bogra

বগুড়ার দইয়ের খ্যাতির মুকুটে যুক্ত হলো ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্যের স্বীকৃতি। বগুড়ার দইয়ের মাথায় জিআই মুকুট। শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটি) ২৫ জুন এ অনুমোদন দেয়। নিয়ে দেশের ১৭টি পণ্য জিআই স্বীকৃতি পেল। ( হালনাগাদ ২৫ আগষ্ট ২০২৩ )

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-শেরপুরের-তুলশীমালা-ধান-GI-product-of-bangaldesh-part-2

তুলসীমালা ধান

Tulshimala Rice

তুলসীমালা ধান ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃত।
শেরপুর জেলার অন্যতম ঐতিহ্য তুলসীমালা সুগন্ধি চাল। এ চালের পিঠা-পায়েস, খই-মুড়ি, ভাতের সুগন্ধ ও স্বাদ অসাধারণ। ‘পর্যটনের আনন্দে, তুলসীমালার সুগন্ধে’ স্লোগান সামনে রেখে শেরপুর জেলা প্রশাসন এটিকে জেলার ব্র্যান্ডিং পণ্য হিসেবে ঘোষণা করেছে। তুলসীমালা ধান থেকে এই চাল উৎপাদন হয়।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-চাঁপাই-নবাবগঞ্জের-আশ্বিনা-আম-GI-product-of-bangaldesh-part-2

চাঁপাইনবাবগঞ্জের আশ্বিনা আম

chapainawabganj mango arshina

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-চাঁপাই-নবাবগঞ্জের-ল্যাংড়া-আম-GI-product-of-bangaldesh-part-2

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ল্যাংড়া আম

chapainawabganj mango Langra

নাটোরের কাঁচাগোল্লা

Natore Kacha Golla

আমি ক্লান্ত প্রাণ এক, চারিদিকে জীবনের সমুদ্র সফেন,
আমারে দু-দণ্ড শান্তি দিয়েছিলো নাটোরের বনলতা সেন।
– জীবনানন্দ দাশ
জীবনানন্দ দাশের ক্লান্ত প্রান কি জুড়িয়ে ছিলো মধুসূদন এর কাচাঁ গোল্লায়! এতো পুরানো ঐতিহ্যবাহী খাবার চেখে দেখলে অবশ্যই কবিতায় আসতো। সে যাই হোক। নাটোরের মিষ্টিটির নাম কাচাগোল্লা হলেও এটি দেখতে মোটেও কাচাঁ কিংবা গোলাকার নয়।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-বাংলাদেশের-ব্ল্যাক-বেঙ্গল-ছাগল-GI-product-of-bangaldesh-part-2

বাংলাদেশ ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল

Black Bengal goat

পৃথিবীতে এই মূহুর্তে প্রাকৃতিক এবং কৃত্রিম উপায়ে মডিফায়েড মিলে প্রায় ৩০০’র মত জাতের ছাগল আছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের স্থানীয় জাতের কালো ছাগল বা ব্ল্যাক বেঙ্গল গোটকে অন্যতম সেরা জাতের ছাগল বলা হয়।
২০০৭ সালে এফএও বিশ্বের ১০০টি জাতের ছাগলের ওপরে গবেষণা চালিয়ে ‘ব্ল্যাক বেঙ্গল’কে বিশ্বের অন্যতম সেরা জাত হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-টাংগাইলের-চমচম-GI-product-of-bangaldesh-part-2

টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচম

Porabari Chamcham | TANGAIL

টাঙ্গাইলের প্রায় দুইশ বছরের প্রাচীন গৌরব বহন করে। এই পোড়াবাড়ি চমচম যা সমগ্র ভারত পাক উপমহাদেশ জুড়ে বিখ্যাত ছিল এবং এখনও সকলের কাছে চিরন্তন আবেদন রয়েছে। বৃটিশ শাসনামল থেকে প্রস্তত হওয়া এই মিষ্টিটি টাঙ্গাইলকে সারা বিশ্ব কর্তৃক স্বীকৃতি এনে দিয়েছে।
টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির ধলেশ্বরী নদীর তীরে ছোট্ট একটি গ্রামে এই মিষ্টি বানানো হয়। পোড়াবাড়ি গ্রামের নামানুসারে এই মিষ্টির নামকরণ করা হয়েছে। এটি টাঙ্গাইল শহর থেকে প্রায় চার কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত।

ধরানা করা হয়, চমচম বানানোর ক্ষেত্রে ধরেশ্বরী নদীর প্রাকৃতিক পরিবেশ বিষেশ প্রভাব রাখে। ওখানের মিষ্টি কারিগররা বিশ্বাস করেন যে টাঙ্গাইল শহরের বাইরে গিয়ে এই মিষ্ট বানানো সম্ভব নয়।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-কুমিল্লার-রসমালাই-GI-product-of-bangaldesh-part-2

কুমিল্লার রসমলাই

CUMILLAR ROSHMALAI

বগুড়ার দই এর মত করে শতবর্ষের ঐতিহ্য নিয়ে কুমিল্লার জেলার ব্রান্ডিং করে যাচ্ছে কুমিল্লার রসমালাই। মিষ্টির নামের এবং আলাদা স্বাদের জন্য ওই অঞ্চলের নাম জুড়ে দিতে হয়েছে। তার কারন হিসেবে অনেকে মনে করেন যে স্থানীয় জল বা ধোঁয়া গন্ধ হল কুমিল্লার রসমালাই এর মুল রহস্য। সে যাই হোক, মিষ্টির মূল স্বাদ আসে খাঁটি দুধ, জ্বাল আর দুধের সাথে অন্যান্য উপকরনের সঠিক মিশ্রন।

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-কুষ্টিয়ার-তিলের-খাজা-GI-product-of-bangaldesh-part-2

কুষ্টিয়ার তিলের খাজা

Tiler Khaja

দুই’শ বছরের ঐতিহ্য কুষ্টিয়ার তিলের খাজা |  খাবারটি কুষ্টিয়ার নামের সাথেই মিশে আছে। কুষ্টিয়ার মুখরোচক এই তিলের খাজা এখন পরিণত হয়েছে ক্ষুদ্র শিল্পে। সারা বছরই তৈরি করা হয় তিলের খাজা। তবে শীত মৌসুমে এর আলাদা কদর রয়েছে। এপ্রিল- জুলাই মাস পর্যন্ত চলে তিলের খাজা মৌসুম। 

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্যসমূহ-রংপুরের-হাঁড়িভাঙ্গা-আম-GI-product-of-bangaldesh-part-2

রংপুরের হাড়িভাঙ্গা আম

Rangpur Haribhanga Mango 

হাড়িভাঙ্গা আম বাংলাদেশের একটি বিখ্যাত ও সুস্বাদু আম। বিশ্ববিখ্যাত এ হাড়িভাঙ্গা আমের উৎপত্তি রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়ন থেকে। হাড়িভাঙ্গা আম বাংলাদেশের আশবিহীন একপ্রকারের সুস্বাদু আম। বিশ্বখ্যাত, স্বাদে গন্ধে অতুলনীয় আম

বাংলাদেশের-জিআই-পণ্য-সমূহ-মৌলভীবাজারের-আগর-আতর-GI-product-of-bangaldesh-part-2

মৌলভীবাজারের আগর

মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলাকে বলা হয় আগর-আতরের আঁতুড়ঘর। এ এলাকায় আগর চাষের ইতিহাস প্রায় ৪০০ বছরের। ১৫৯০ খ্রিস্টাব্দে আবুল ফজল রচিত ‘আইন-ই-আকবরি’ গ্রন্থে আগর কাঠ, আগর তেল এবং আগর থেকে আতর আহরণের বিশদ বর্ণনা পাওয়া যায়। ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দের দিকে বড়লেখায় আগর চাষের বিস্তার ও ব্যবসা সুসংগঠিত হয়।

মুক্তাগাছার মন্ডা বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

মুক্তাগাছার মন্ডা

muktagacha monda | GI Product

মুক্তাগাছার মন্ডা বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা উপজেলার একটি বিখ্যাত মিষ্টি। রাম গোপাল পাল ১৮২৪ সালে এই মিষ্টি প্রথম তৈরি করেন।২০২৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে এটিকে বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে অনুমোদন জার্নাল প্রকাশিত হয়।

যশোরের খেজুরের গুড় বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

যশোরের খেজুরের গুড়

Jashore Date Jaggery | GI Product

মধুবৃক্ষ বলা হয় খেজুর গাছকে। প্রবাদ, যশোরের যশ খেজুরের রস।
বাংলাদেশের ঐতিহ্য যশোরের খেজুরের গুড়। ঐতিহ্যের প্রতীক মধুবৃক্ষ থেকে সুমধুর রস বের করে গ্রামের ঘরে ঘরে শুরু হয়েছে গুড়-পাটালি তৈরির উৎসব। ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ যশোরের খেজুরের গুড় কে ভৌগলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে অনুমোদন দিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়।

নরসিংদীর অমৃত সাগর কলা বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

নরসিংদীর অমৃত সাগর কলা

BANANA GARDEN, NARSINGDI | GI Product

বারোমাসি এই অমৃতসাগর কলার জন্য নরসিংদী বিখ্যাত। এ কলা নরসিংদী সদর, পলাশ, রায়পুরা, ঘোড়াশাল, শিবপুর, শিলমান্দি ও মনোহরদী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চাষ করা হয়। মুঘল আমল থেকেই এই এলাকায় অমৃত কলার চাষ হয় বলে দাবি করেন জেলা কৃষি কর্মকর্তারা। নরসিংদীর অমৃত সাগর কলা -কে জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়

রাজশাহীর মিষ্টি পান বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

রাজশাহীর মিষ্টি পান

Rajshahi paan | GI Product

পানকে বলা হয় ‘ক্যাশ ক্রপ’ বা অর্থকরী ফসল বলা হয়। আর কৃষকরা পানের বরজকে বলে থাকেন ‘ক্যাশ ব্যাংক’। যখন প্রয়োজন হয় তারা বরজ থেকে পানপাতা তুলে সরাসরি বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করেন। রাজশাহীর মিষ্টি পান পেতে যাচ্ছে ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই স্বীকৃতি। জিআই স্বীকৃতি পেলে রাজশাহীর পানের উৎপাদন, বণ্টন ও বিপণনে যোগ হবে নতুনমাত্রা।

গোপালগঞ্জের রসগোল্লা বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

গোপালগঞ্জের রসগোল্লা

 Gopalganj Rosogolla | GI Product

বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক জিআই পণ্য হিসেবে গোপালগঞ্জের রসগোল্লা স্বীকৃতি পেয়েছে। এটি এক প্রকার রসালো মিষ্টি। এটি খাঁটি ছানা আর চিনি দিয়ে তৈরি করা হয়। এতে ময়দার কোনো ব্যবহার নেই। এই রসগোল্লা দেখতে সাদা ও গোলাকার আকৃতির হয়। গোপালগঞ্জের রসগোল্লায় মিষ্টির পরিমাণ খুবই কম। রস বা চিনির সিরা পাতলার কারণে এ রসগোল্লার স্বাদ দেশের যে কোনো অঞ্চলের রসগোল্লার চেয়ে ভিন্ন। খেতে সুস্বাদু।

নরসিংদীর লটকন বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

নরসিংদীর লটকন

Narsingdi Lotkon | GI Product

স্থানীয়ভাবে ‘বুগি’ নামে পরিচিত হলেও দেশের প্রায় সর্বত্রই ফলটি লটকন নামে পরিচিত। প্রচুর ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ দেশীয় জাতের এই ফলটি নরসিংদীতে এত বেশি জন্মে যে, মনে হয় পুরো নরসিংদী জেলা লটকনের রাজ্য। প্রতি বছর মাঘ- ফাল্গুনে লটকন গাছে মুকুল আসে। জ্যৈষ্ঠ মাসের শেষে তা পাকতে শুরু করে। বেলে ও দো-আঁশ মাটিতে এর ফলন ভালো হয়।

জামালপুরের নকশিকাঁথা বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ GI product of bangaldesh x bfa x fxyz part 3

জামালপুরের নকশিকাঁথা বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে অনুমোদন দিয়ে জার্নাল প্রকাশিত হয়েছে। নকশি কাঁথা: বাংলাদেশের লোকশিল্পের একটা অংশ। কশি কাঁথার নকশা শুধু কাঁথার জমিনে সুঁইয়ের ফোঁড়ে ফুটিয়ে তোলা নকশাই নয়, একেকটি নকশী কাঁথার জমিনে লুকিয়ে থাকে গল্প, কখনো ভালোবাসার, কখনো দুঃখের। বাংলার পথে প্রান্তরে হারিয়ে যাওয়া গল্পকে বুকে নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে একেকটি নকশী কাঁথা।

বাংলাদেশের জিআই পণ্যসমূহ

Total number of geographical indication products in Bangladesh 

জিআইপণ্যের নামআবেদনকারী
০১জামদানি শাড়িবিসিক
০২বাংলাদেশ ইলিশমৎস্য অধিদপ্তর
০৩চাঁপাই নবাবগঞ্জের খিরসাপাত আমবাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট
০৪বিজয়পুরের সাদামাটিজেলা প্রশাসন নেত্রকোণা
০৫দিনাজপুরের কাটারীভোগবাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট
০৬বাংলাদেশ কালিজিরাবাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট
০৭রংপুরের শতরঞ্জিবিসিক
০৮রাজশাহী সিল্কবাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ড
০৯ঢাকাই মসলিনতাঁত বোর্ড
১০বাংলাদেশের বাগদা চিংড়িমৎস্য অধিদপ্তর
১১রাজশাহী-চাপাইনবাবগঞ্জের ফজলি আম১. ফল গবেষণা কেন্দ্র, বিনোদপুর
২. চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি এসোসিয়েশন
১২বাংলাদেশের শীতলপাটিবিসিক
১৩বগুড়ার দইরেঁস্তোরা মলিক সমিতি, বগুড়া
১৪শেরপুরের তুলশীমালা ধানজেলা প্রশাসন, শেরপুর
১৫চাঁপাইনবাবগঞ্জের ল্যাংড়া আমআঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ
১৬চাঁপাইনবাবগঞ্জের আশ্বিনা আমআঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ
১৭নাটোরের কাঁচাগোল্লাজেলা প্রশাসন, নাটোর
১৮বাংলাদেশ ব্লাক বেঙ্গল ছাগলপ্রাণি সম্পদ অধিদপ্তর
১৯টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচমজেলা প্রশাসন, টাংগাইল
২০কুমিল্লার রসমালাইজেলা প্রশানস, কুমিল্লা
২১কুষ্টিয়ার তিলের খাজাজেলা প্রশানস, কুষ্টিয়া
সূত্র: পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর
০১রংপুরের হাড়িভাঙ্গা আমআলহাজ্ব আব্দুস সালাম সরকার হাড়িভাঙ্গা আম কৃষক স্কুল
০২মৌলভীবাজারের আগরবাংলাদেশ আগর এন্ড আতর ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন
০৩মৌলভীবাজারের আগর আতরবাংলাদেশ আগর এন্ড আতর ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন
০৪মুক্তাগাছার মন্ডাউপজেলা প্রশাসন, মুক্তাগাছা, ময়মনসিংহ
০৫যশোরের খেজুরের গুড়উপজেলা প্রশাসন, চৌগাছা, যশোর
০৬নরসিংদীর অমৃত সাগর কলাজেলা প্রশাসকন, নরসিংদী
০৭রাজশাহীর মিষ্টি পানজেলা প্রশাসক, রাজশাহী
০৮গোপালগঞ্জের রসগোল্লাজেলা প্রশাসক, গোপালগঞ্জ
০৯নরসিংদীর লটকনজেলা প্রশাসক, নরসিংদী
১০টাঙ্গাইল শাড়িজেলা প্রশাসক, টাঙ্গাইল
১১জামালপুরের নকশিকাঁথাজেলা প্রশাসক, জামালপুর
০১নোয়াখালির মহিষের দুধের দইজেলা প্রশাসন, নোয়াখালিনোয়াখালী
০২লতিরাজ কচুজেলা প্রশাসন, জয়পুরহাটজয়পুরহাট
০৩তরল দুধবাংলাদেশ দুগ্ধ উৎপাদনকারী সমবায় ইউনিয়ন লিমিটেড (মিল্ক ভিটা)সিরাজগঞ্জ
০৪নাক ফজলী আমবদলগাছী উপজেলা নাক ফজলী আম চাষি সমবায় সমিতি লিমিটেডনওগাঁ
০৫সুন্দরবনের মধুজেলা প্রশাসন, বাগেরহাটবাগেরহাট
০৬ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছানামুখী মিষ্টিবাংলাদেশ রেঁস্তোরা মালিক সমিতি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখাব্রাহ্মণবাড়িয়া
০৭ফুটি কার্পাস তুলাবাংলাদেশ তাঁত বোর্ডবাংলাদেশ
০৮ফুট কার্পাস তুলার বীজ ও গাছবাংলাদেশ তাঁত বোর্ডবাংলাদেশ
০৯সিলেটের মণিপুরি শাড়িবাংলাদেশ তাঁত বোর্ডসিলেট অঞ্চল
১০মাগুরার হাজরাপুরী লিচুজেলা প্রশাসন, মাগুরামাগুরা
১১মধুপরের আনারসজেলা প্রশাসন, টাঙ্গাইলটাঙ্গাইল
১২মৃৎশিল্প, পটুয়াখালীবিশ্বশ্বর পাল, বাউফল, পটুয়াখালীপটুয়াখালী
১৩পেয়ারা, ঝালকাঠিসুজন হালদার, ঝালকাঠি সদরঝালকাঠি
১৪মহিষের দুধের কাঁচা দইজেলা প্রশাসন, ভোলাভোলা
১৫শেরপুরের ছানার পায়েসজেলা প্রশাসন, শেরপুরশেরপুর
১৬টাঙ্গাইলের শাড়িবাংলাদেশ তাঁত বোর্ডটাঙ্গাইল
১৭দিনাজপুরের লিচুজেলা প্রশাসন, দিনাজপুরদিনাজপুর
১৮মিরপুরের কাতানবাংলাদেশ তাঁত বোর্ডমিরপুর, ঢাকা
১৯কুমিল্লার খাদিবাংলাদেশ তাঁত বোর্ডকুমিল্লা
০১পিরোজপুরের মাল্টাপিরোজপুর মাল্টা উৎপাদনকারী সমবায় সমিতিপিরোজপুর
০২পোড়াবাড়ীর চমচমমেসার্স জয়কালী মিষ্টান্ন ভাণ্ডারটাঙ্গাইল
০৩পোড়াবাড়ীর চমচমমেসার্স গৌর ঘোষ দধি এন্ড মিষ্টান্ন ভাণ্ডারটাঙ্গাইল
০৪পোড়াবাড়ীর চমচমমেসার্স গোপাল মিষ্টান্ন ভাণ্ডারটাঙ্গাইল
০৫শীতলপাটিবাংলাদেশ বাঁশ, বেত ও পাটি শিল্প ফাউন্ডেশনমীরসরাই, চট্টগ্রাম
০৬সোনালি মুরগীজেলা প্রশাসন, জয়পুরহাটজয়পুরহাট
০৭হাড়িভাঙ্গা মিষ্টিজেলা প্রশাসন, জয়পুরহাটজয়পুরহাট
০৮সাবিত্রী রসকদমবাসুদেব গ্র্যান্ড সন্স, মেহেরপুরমেহেরপুর
০৯চাচুরি বিলে কৈ মাছজনাব মন্ডা রায়নড়াইল
১০তাঁত বস্ত্রমেসার্স জামান টেক্সটাইলসিরাজগঞ্জ

তথ্যসুত্র:

somoynews.tv

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর


facebook page link : BFA

About Post Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

আপনার একটি শেয়ার আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা

X (Twitter)
Post on X
Pinterest
fb-share-icon
Instagram
FbMessenger
Open chat
1
Scan the code
Hello
How can i help you?
Skip to content