জামদানি | মসলিন কাপড়ের উত্তরাধিকারী

বাংলাদেশের অনন্য সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য

জামদানি | মসলিন কাপড়ের উত্তরাধিকারী

ভোরবেলা সুতো প্রস্তুতের সবচেয়ে ভালো সময়। কেননা, এসময় বাতাসের আর্দ্রতা বেশি থাকে। এ কারণে দেশের অন্য কোথাও জামদানি তৈরি সম্ভব হয় না।

বলা হয় প্রাচীনকালের মসলিন কাপড়ের উত্তরাধিকারী হিসেবে জামদানি শাড়ি। যা বাংলাদেশের অনন্য সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। জামদানি কে স্রেফ কাপড় / শাড়ি বা পণ্য ভাবলে ভুল হবে। জামদানি হচ্ছে বিশেষ ভূগোল ও পরিবেশে শিল্প চর্চার বিশেষ একটি ধরণ যার মাধ্যমে একজন তাঁতি  সুতা , রং , মাকু এবং তাঁত এর মাধ্যমে নৈপুণ্য শিল্প তৈরী করে।

জামদানি মসলিন কাপড়ের উত্তরাধিকারী

জামদানি নামকরন

নামকরণ নিয়ে বিভিন্ন ধরনের মতবাদ রয়েছে ,  তোফায়েল আহমদ (১৯৬৪)-এর মতে,  জামদানি একটি ফরাসি শব্দ। জামা মানে কাপড় আর দানা মানে বুটি। যার অর্থ “বুটিদার কাপড়”। আরেকটি মত হলো,  ফারসিতে জাম অর্থ এক ধরনের উৎকৃষ্ট মদ এবং দানি অর্থ পেয়ালা।  আবার অন্যমতে  জামাদনি  ফরাসি শব্দ বলে সমর্থন করলেও অর্থ  দাড়ায় ফুলদানি। অর্থাৎ  ফরাসি শব্দ জাম-দার থেকে জামদানির উৎপত্তি।

নামকরন কিংবা ইতিহাসে নাই বা গেলাম। জামদানি, বাংলাদেশের নিজস্ব ঐতিহ্য। ঐতিহ্যবাহী নকশা ও বুননের কারণে ২০১৬ সালে জামদানিকে বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ইউনেস্কো।

ঐতিহ্যবাহী নকশা ও বুননের কারণে ২০১৬ সালে জামদানিকে বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ইউনেস্কো।

ভালো জামদানি তৈরির জন্য ভালো সুতো, দক্ষ কারিগর, ঐতিহ্যবাহী নকশা যেমন দরকার তেমনি প্রয়োজন আর্দ্রতা। শীতলক্ষ্যা নদীপাড়ের আর্দ্র আবহাওয়া জামদানি তৈরির জন্য উপযোগী।  

শীতলক্ষ্যার পানি, আবহাওয়া ও জলবায়ুর অদ্ভুত রসায়নই বিস্ময়কর কাপড় তৈরির মন্ত্র হিসেবে কাজ করেছে। এখানকার রোদের তেজে সুতায় আসে আলাদা ঔজ্জ্বল্য।  আবহাওয়া এখানে তাঁতিদের মধ্যে তৈরি করেছে উদ্দীপনা, কর্মস্পৃহা। তাইতো অতীতের মসলিন এবং আজকের জামদানি শিল্প দুটোই শীতলক্ষ্যাকে ঘিরেই গড়ে উঠেছে।  ভোরবেলা সুতো প্রস্তুতের সবচেয়ে ভালো সময়। কেননা, এসময় বাতাসের আর্দ্রতা বেশি থাকে। এ কারণে দেশের অন্য কোথাও জামদানি তৈরি সম্ভব হয় না।

জামদানি সম্পর্কে বিস্তারিত

আলাদা আলাদা করে বর্ণনা দেয়া আছে। বিস্তারিত জানতে ছবির উপর ক্লিক করুন


1234

jamdani saree

.


আপনার একটি শেয়ারে জানবে বিশ্ব, আমাদের দেশ কতটা সমৃদ্ধ


স্বীকৃতি

২০১৩ সালে জামদানী বয়নের অতুলনীয় পদ্ধতি ইউনেস্কো কর্তৃক একটি অনন্যসাধারণ নির্বস্তুক সংস্কৃতিক ঐতিহ্য (ইনট্যানজিবল কালচারাল হেরিটেইজ) হিসেবে স্বীকৃত হয়েছে ।

ঐতিহ্যবাহী নকশা ও বুননের কারণে ২০১৬ সালে জামদানিকে বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ইউনেস্কো।


ভৌগোলিকনির্দেশক (জিআই) পণ্যকি? >>>

বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পন্য কিকি ? >>>

জামদানি বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পন্য  সুরক্ষায় নিবন্ধন করা হয়েছিল যেভাবে (PDF ) The case of jamdani >>>


welcome to BANGLADESH | JAMDANI
welcome to BANGLADESH | JAMDANI
fashion content writer

তথ্যসূত্র

prothomalo.com/ঢাকাই-জামদানির-রঙিন-ভুবন

bbc.com/bengali

bn.wikipedia.org


About Post Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial
error

আপনার একটি শেয়ার আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা

X (Twitter)
Post on X
Pinterest
fb-share-icon
Instagram
FbMessenger
Open chat
1
Scan the code
Hello
How can i help you?
Skip to content